• শনিবার ( সকাল ৮:২০ )
  • ৮ই আগস্ট ২০২০ ইং

» ইউথ_ইভেন্টের_নামে_শিক্ষার্থী_ও_অভিভাবকরা_কি_হুমকীর_মুখে…

প্রকাশিত: ২৬. ফেব্রুয়ারি. ২০২০ | বুধবার

বিশেষ প্রতিবেদকঃ
তরুন ছাত্র যুবরা অধ্যায়নরত, তাদের নিয়ে এখন বিভিন্ন যুব সংগঠন নানা নামে বিভিন্ন ইভেন্ট আয়োজন করছে। এটা বেশ প্রশংসা যোগ্য। এই আয়োজনে বিভিন্ন খাত দেখিয়ে রেজিস্ট্রেশন করা হয়।যেখানে বেশ বড় অংকের ফি দিতে হয়।এই যে রেজিষ্ট্রেশনের নামে মোটা দাগে ফি নিচ্ছে, কিন্তুু অনুসন্ধানে দেখা যায় যে এই সব তরুনদের অধিকাংশই পিতা মাতার আয়ের উপর নির্ভরশীল। যদিও কেউ কেউ নিজে উর্পাজন করে থাকে।দেখা যায় তরুন শিক্ষার্থীরা প্রয়োজনের কথা বলে বাড়ী থেকে বাবা মায়ের বা অভিভাবকের নিকট থেকে এই অর্থ সংগ্রহ করে থাকে।আবার একটা আয়োজনে অংশ নিলেই চলে না, এখনকার ছেলে মেয়েরা বেশ রুচিশীল, তারা নিত্য পোশাকে অভ্যস্ত। আবার আয়োজন গুলো দেশের এবং দেশের বাইরেও হচ্ছে। সেখানে ট্রান্সর্পোট ব্যায়ও উল্লেখযোগ্য,এই সব মিলিয়ে ব্যায় শুধু বেড়েই চলেছে।

যদি সত্যিই এটা প্রয়োজন এবং শিক্ষনীয় হয়ে থাকে তবে আয়োজকরা নিজ খরচে বা কর্পোরেট হাউজগুলোর সহযোগিতায় করতে পারেন। আবার যদি শিক্ষার্থীদের উপকার করার ইচ্ছা থেকেই থাকে তবে ইউটিউবে ভিডিও টিউটোরিয়াল দেওয়া যেতে পারে। আধূনিক ডিজিটাল সব সুযোগকে কাজে লাগাতে পারেন।

এখানে মনে রাখতে হবে ইভেন্টের নামে কর্পোরেট হাউজ গুলোর সহযোগিতা নেওয়া হচ্ছে। অনুদান নেয়া হচ্ছে আবার রেজিষ্ট্রেশন করে ফিও নেওয়া হচ্ছে।
আমাদের মনে রাখতে হবে শহরের চাকচিক্য জীবনই সব নয়। প্রকৃত সত্যটাও উপলব্ধি করতে হবে।
যদি লক্ষ্য করেন তবে দেখা যায়, যে সব তরুনদের দিয়ে এই আয়োজন করা হয়ে থাকে তারাও শিক্ষার্থী। তাদের প্রধান কাজ মূল উদ্দেশ্য পড়া লেখা করা। যদি একটার পর একটা ইভেন্ট আয়োজন হতে থাকে তবে তাদের পড়া লেখায়ও ক্ষতি হয়।
আয়োজকদের খেয়াল রাখতে হবে যেন কোন ভাবেই তরুন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা কোন ভাবেই ক্ষতির মুখে না পড়ে।

আমরা যেনো তরুনদের তারুন্যকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি পোস্টের উৎসাহ দিয়ে, আকর্ষন সৃস্টি করে তাদের আসল উদ্দেশ্যকে বাঁধাগ্রস্ত না করি।
আসুন যা করার তাসঠিক ভাবে করি।ব্যাবসায়িক মনোভাব ত্যাগ করি।
লেখকঃ
জি এম কামরুল হাসান
কলাম লেখক
gmkhasan@gmail.com

ফেসবুক থেকে কমেন্ট করুন।
Share Button

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ২৩৬ বার

Share Button